চরফ্যাশনে নির্বাচনী প্রচারনাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে,ব্যাপক ভাংচুর আহত ৩০

0
8

মো: আফজাল হোসেন,চরফ্যাশন থেকে ফিরে :: ::   ভোলার চরফ্যাশনে নির্বাচনী প্রচারনা চালানোকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছে। এসময় নির্বাচনী অফিস,মটরসাইকেলসহ ব্যাপক ভাংচুরেরর ঘটনা ঘটেছে।

 

চরফ্যাশন উপজেলার নীল কমল ইউনিয়নের সতন্ত্র প্রার্থী ইকবাল হোসেন লিখন মটরসাইকেল মার্কা এবং নৌকার প্রার্থী মোঃ আলমগীর হাওলাদার এর সমর্থকদেন মধ্যে প্রচারনাকে কেন্দ্র করে ঘোষেরহাট বাজারে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষ চলাকালিন সময় একে অপরের উপর ইটপাটকের নিক্ষেপ করে। প্রায় দেরঘন্টা ব্যাপি চলা সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়। এসময় মটরসাইকেল,প্রচারনার রিক্সা,মাইক ও নির্বাচনী অফিসসহ দোকানপাট ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে দুলারহাট থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এসময় আহতদের উদ্ধার করে চরফ্যাশন ও ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয়রা বলেন,মটরনাইকেল মার্কার সমর্থকরা তাদের নির্বাচনী অফিসে বসেছিলো এবং রিক্সায় প্রচারনা চালাচ্ছিলো এমন সময় মটরসাইকেল বহর নিয়ে নৌকার প্রার্থীসহ তাদের সমর্থকরা রাস্তা দিয়ে যাবার সময় হঠাত করেই প্রচারনা চালানো নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পকর্যায় প্রচারনার রিক্সাসহ মাইক ভাংচুর করে পাশের খালে ফেলে দেয়। এক পর্যায় মটরসাইকেলে নির্বাচনী অফিসে হামলা চালিয়েব্যাপক ভাংচুর করে। এসময় মটরসাইকেল সমর্থকরা সংর্ঘষে জড়িয়ে পড়লে দপায় দফায় দুই গ্রুপে সংঘর্ষ চলে। খবর পেয়ে দুলারহাট থানার থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে দির্যক্ষন চেস্টার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়।

 

এঘটনায় নৌকা মার্কার প্রার্থী মো: আলমগীর হাওয়ালাদার বলেন,আমি নৌকার প্রার্থী। আমার ব্যাপক সমর্থন রয়েছে। তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে ঘটনা ঘটেছে। আমি সুষ্ঠ নির্বাচন চাই। ঝামেলা চাইনা। আমরা চাইলে ওরা কি পারে আমাদের সাথে।

 

অপরদিকে সতন্ত্র প্রার্থী মো: ইকবাল হোসেন লিখন বলেন,আমার প্রচারনায় নৌকার প্রার্থীসহ বহিরাগত সন্ত্রাসীদের নিয়ে হামলা চালায়। তারা আমার নির্বাচনী অফিসে ব্যাপক ভাংচুর করে তছনছ করে দেয়। এছাড়া আমার বাড়িতে হামরার চেস্টা করে্ এক্ই সময তিনটি প্রচারনার মাইকসহ রিক্সা,মটরসাইকেল ভাংচুর করে। নির্বাচনী পরিবেশ নস্ট করার জন্য সব ধরনের চেস্টা করছে। আমি শান্তিপূর্ন পরিবেশ চাই।

 

এবিষয় দুলারহাট থানার ওসি মো: আনোয়ার হোসেন ঘটনা স্বিকার করে বলেন,ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। রাতেই খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রযেছে।

 

উল্লখ্য,আগামী ২৯ডিসেম্বর জেলার চরফ্যাশন উপজেলার নীল কমল,আমিনাবাদ ও জিন্নাগর ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে। এবছর ইভিএমে ভোট গ্রহন করা হবে।

 

LEAVE A REPLY