ভোলার চরফ্যাশনে শিশুদের স্কুলে আগুন আহত ২০

0
0

চরফ্যাশন প্রতিনিধি:: ভোলার চরফ্যাশন সরকারী মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আগুন আতংকে তাড়াহুরা করে নামতে গিয়ে অন্তত ২০ শিশু আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

 

বুধবার দুপুর ১২টায় বৈদ্যুতিক শর্ট থেকে আগুন লাগার খবরে শিশুদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। অগ্নিকান্ডে হতাহতের ভয়ে তাড়াহুড়ো করে দোতালা থেকে নামতে গিয়ে ২০শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। জানা গেছে সকাল ৯টা ৩০মিঃ-১২টা পর্যন্ত কোলমতি শিশুদের অভিভাবকরা স্কুলের ক্লাশ শেয়ে ছুটির অপেক্ষা করছিল।নিয়মানুযায়ী প্রতিটি কক্ষের ভিতরে দরজা আটকে শিশুদের ক্লাশ নেয়া হচ্ছিল।হঠাৎ ১২টার দিকে স্কুলের সিঁড়ির পাশে বিদ্যুত বোর্ডে বৈদ্যতিক সট সার্কিটে আগুন লেগে চারদিকে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অভিভাবকরা দরজা ভেঙ্গে সন্তানদের বাঁচাতে ঝাপিয়ে পড়ে।

নীচতলায় সিড়িতে আগুনের ভয়ে দোতালায় গ্রীল ভেঙ্গে অভিভাবক ও স্কুলের শিক্ষক-কর্মচারীরা উপর থেকে শিশুদের নীচে নামাতে গিয়ে অন্তত ২০শিশু আহত হয়েছে। আহতদের তাৎক্ষনিক নাম পাওয়া যায়নি। চরফ্যাশন উপজেলা চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন আকন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল নোমান, পৌর মেয়র মোঃ মোরশেদ, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ আবদুল মতিন খান ও পৌর কাউন্সিলর আকতারুল আলম সামু ছুটে আসেন। এসময় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা স্কুলের দোতালায় আটকে পড়া শিক্ষার্থীদের উদ্ধার করে নীচে নামিয়ে আনে। স্কুলে আগুন লাগার খবর পেয়ে অনেক অভিভাবরা বাড়ি থেকে দৌড়ে ছুটে এসেছে প্রিয় সন্তানের খোঁজে।

 

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ নিজাম উদ্দিন বলেন, সট সাকিটে আগুন লাগার পরে স্থানীয় কয়েকজন ইলেক্ট্রনিক্স কর্মি খবর পেয়ে বিদ্যুত বোর্ডের তারের সকল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়ার পরে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।ফলে বড় দূর্ঘটনার থেকে রক্ষা পেল স্কুলের কোমলমতি ১২শ শিশু শিক্ষার্থীরা। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে অভিভাবকরা বাড়ি নিয়ে যায়।

 

এবিষয় চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকতৃআ মো: আল নোমান বলেন,অনেক পুরনো স্কুল এগুলোর কাজ করা উচিত। আমিসহ অনেকেই গিয়েছি। তাড়াহুড়া করতে গিয়েশিশুরা আহত হয়েছে। তবে সকলেই প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হবার মত আহত কেউ হয়নি।

LEAVE A REPLY