ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ

ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ

0
22
ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। যার ফলে নাগাল্যান্ড জুড়ে উত্তাপ বাড়ছে: ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছে মানুষ
নাগাল্যান্ড রাজ্যে ভারতীয় সেনাবাহিনী ১৪ যুবককে গুলি করে হত্যা করার পর বেশ কয়েক দিন কেটে গেছে। কিন্তু নাগাল্যান্ডে তাপ কমার কোনো লক্ষণ নেই। উল্টো বাড়ছে। এতদিন যা দাগহীন মনের জেলায় সীমাবদ্ধ ছিল, তা এখন রাজ্যজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে। শুক্রবার নাগাল্যান্ডের কোহিমায় বিশাল মিছিল করেছে রাজ্যের প্রভাবশালী ছাত্র সংগঠন। বিক্ষোভকারীরা দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি এবং সশস্ত্র বাহিনী বিশেষ ক্ষমতা আইন (AFSPA) বাতিলের দাবি জানায়। ব্যানার ও পোস্টারে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাওয়ার দাবিও জানিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। ৪ ডিসেম্বর, ভারতীয় সেনাবাহিনী নাগাল্যান্ডের মান জেলায় একটি ট্রাককে সন্ত্রাসবাদী ভেবে গুলি চালায়। স্থানীয়দের সঙ্গে সেনা সদস্যদের সংঘর্ষে মোট ১৪ জন নিহত হয়েছেন। এরপর ১৩ দিন কেটে গেছে। কিন্তু স্থানীয়দের মেজাজ হারানোর কোনো লক্ষণ নেই। শুক্রবার নাগাল্যান্ডের রাজধানী কোহিমায় ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। বিশাল প্রতিবাদ মিছিলে, জনগণের AFSPA প্রত্যাহারের দাবি আবার উঠে আসে।
শুক্রবার, প্রভাবশালী ছাত্র সংগঠন নাগা স্টুডেন্টস ফেডারেশন (এনএসএফ) রাজধানী কোহিমায় প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। এতে যোগ দেন বিভিন্ন বয়সের মানুষ। ধীরে ধীরে প্রতিবাদ মিছিল শরীরে দৈত্য হয়ে ওঠে। মিছিলটি উত্তর-পূর্ব থেকে অবিলম্বে AFSPA প্রত্যাহার এবং গণহত্যার জন্য দায়ীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানিয়েছে। মিছিলে অংশগ্রহণকারীদের হাতে বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড ছিল। তাদের একজন লিখেছেন, ‘AFSPA প্রত্যাহারের আগে আর কত গুলি চালানো হবে?’ ‘আফস্পা বাতিল কর, আমাদের নয়’ সহ বিভিন্ন পোস্টার। শুক্রবার ছিল টানা বিক্ষোভের তৃতীয় দিন। মান জেলায় সেনাবাহিনীর চলাচলে নিষেধাজ্ঞা এখনও বলবৎ রয়েছে। তবে স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভের কোনো লক্ষণ নেই। লক্ষণীয়, এতদিন আন্দোলন মান জেলাতেই সীমাবদ্ধ ছিল। এবার তা ছড়িয়ে পড়েছে রাজধানী কোহিমায়। এতে প্রশাসনের রক্তচাপ বেড়েছে। ইস্টার্ন নাগাল্যান্ড পিপলস অর্গানাইজেশন (ইএনপিও) আন্দোলনের পিছনে চালিকা শক্তি হয়ে ওঠে, যেটি কোনিয়াক ইউনিয়নের সম্পূর্ণ অসহযোগিতার মাধ্যমে শুরু হয়েছিল। তারা সকলকে ভারতের নাগাল্যান্ড উদযাপন থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানায়। এলাকার যে কোনো ধরনের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্থানীয়দের অংশ নিতেও নিষেধ করেন তারা। বৃহস্পতিবার মন জেলায় সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সাধারণ ধর্মঘট পালিত হয়েছে। শুক্রবার রাজধানী কোহিমায় বিশাল বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। ফলে ধীরে ধীরে যে আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ছে তা স্পষ্ট। শুক্রবারের বিক্ষোভ সমাবেশে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগও দাবি করা হয়। অমিত শাহকে নাগাল্যান্ডের জনগণের কাছে ক্ষমা চাওয়ার দাবিও করা হয়েছিল। ৬ ডিসেম্বর সংসদে অমিত শাহের বিবৃতিতে দাবি করা হয়, সেনা ট্রাককে থামাতে বলা হলে তা দ্রুত গতিতে চলে যাবে। এরপর সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীদের লক্ষ্য করে গুলি চালায় সেনাবাহিনী। কিন্তু নাগাল্যান্ডের মানুষ এই দাবি মানতে চায় না। তাদের পাল্টা দাবি অমিত শাহের উচিত সংসদে তার মিথ্যা বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাওয়া। এর আগে নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী ভাগ্নে রিও এবং মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড সাংমা উত্তর পূর্ব থেকে AFSPA প্রত্যাহারের দাবি করেছিলেন। কাকতালীয়ভাবে তারা দুজনেই কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন এনডিএ-র সদস্য। এবার শুরু হলো তীব্র গণআন্দোলন। সব মিলিয়ে নাগাল্যান্ড নিয়ে ভারত সরকারের মাথাব্যথা বাড়ছে।
জীবন আহমেদ সরকার,বিশিস্ট সাংবাদিক

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY