কাশ্মীরকে কি ফিলিস্তিন করার চক্রান্ত হচ্ছে?

0
40

জীবন আহমেদ সরকার,বিশিস্ট কলামিস্ট ও সাংবাদিক :: ফিলিস্তিনের গাজা থেকে দুই মাইল উত্তরে কিবুটস এলাকা। এখানে ১৯৩০’র দশকে পোল্যান্ড থেকে আসা ইহুদীরা কৃষি খামার গড়ে তুলেছিল। ইহুদিদের পাশেই ছিল ফিলিস্তিনী আরবদের বসবাস। সেখানে আরবদের কৃষি খামার ছিল। তারা কয়েক শতাব্দী ধরে সেখানে বসবাস করছিল। সে সময় মুসলমান এবং ইহুদীদের মধ্য ভাল সম্পর্ক ছিলো। কিন্তু ১৯৩৯’র দশকে ফিলিস্তিনীরা বুঝতে পারে যে তারা ধীরে ধীরে জমি হারাচ্ছে। ইহুদীরা দলে দলে সেখানে আসে এবং জমি ক্রয় করতে ধাকে।

এর পর পর বৃটেনে সহযোগীতায় ফিলিস্তিনীদের উচ্ছ্বেদ করা হয়। যার পরিস্থিতি আজ নিজ ভূমিতে পরবাসী হয়ে রয়েছে ফিলিস্তিন।আরব- ইসরাইল যুদ্ধ হলে ও কৌশলে আর অদক্ষতার কারণে ইহুদীবাদী রাষ্ট্রটির কাছে হেরে যায় আরবরা। ইউরোপ  যুক্তরাষ্ট্র তাদের সহযোগীতা করেছে।

এখন কাশ্মীরিরীরা কি একই পরিনতি বরণ করতে যাচ্ছে? গভীর চক্রান্ত হচ্ছে কাশ্মীরকে নিয়ে। বিশেষ করে উগ্র হিন্দুত্ববাদী বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর। তারা কাশ্মীরের বিশেষ ক্ষমতাবাতিল করেছে মোসাদের পরামর্শে। বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর ভারতের জম্মু কাশ্মিরে নতুন পরিকল্পনার ছক আকছে ভারত। এখন সব ভারতীয়রা কাশ্মিরে জমি ক্রয় করতে পারবেন। অনেক হিন্দু ব্যবসায়ী শিল্পপতিরা আগ্রহ দেখাচ্ছেন জমি কেনার জন্য। হোটেল রিসোর্ট বানাতে।

একটি বিষয় স্পস্ট যে, আস্তে আস্তে সেখানে হিন্দুদের সংখ্যা বাড়ানো হবে। জঙ্গী, সন্ত্রাসী বলে প্রভাবশালী  কাশ্মীরি নেতাদের দেশ ছাড়া কিংবা গুম হবার । ইসরাইরী গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের পরামর্শে তা বাস্তাবায়ণের উদ্যোগ নিচ্ছে। বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর ভূ-স্বর্গ কাশ্মিরে এখন সবাই জমিজমা ক্রয় বিক্রয় করতে পারে যেটি আগে ছিলোনা।

 

উত্তর-পশ্চিম ভারত এবং উত্তর-পূর্ব পাকিস্তানের মধ্যে অবস্থিত কাশ্মীর রাজ্যটি ভারতীয় উপমহাদেশের একটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ অঞ্চল। সাতচল্লিশ বছরের আগে পাকিস্তান, ভারত এবং কাশ্মীর নিয়ে গঠিত অঞ্চলটি ব্রিটিশ ভারত হিসাবে পরিচিত ছিল। এটি ছিল ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের একটি উপনিবেশ যা কয়েকশ ছোট ছোট রাজ পরিবারের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছিল স্থানীয় মহারাজার নামে পরিচিত স্থানীয় শাসকদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। ব্রিটিশরা  এই অঞ্চলটি ছেড়ে চলে যাওয়ার পরে, স্বতন্ত্র রাষ্ট্রগুলির উপর নির্ভর করে যে তারা দুটি নতুন স্বতন্ত্র দেশ যোগ দিতে চান তা নির্ধারণ করে।

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলি পাকিস্তানের অংশ হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, এবং হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠতা সম্পন্ন দেশ গুলি নতুন ভারতের অংশ হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ অঞ্চল কাশ্মীর পাকিস্তানের সাথে একত্রিত হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, তবে এর হিন্দু শাসক রাজা হরি সিং ভারতের দিকেই ঝোঁক রেখেছিলেন। দেশটির প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর দ্বারা পাকিস্তানের জগুলার শিরা বলে অভিহিত কাশ্মীর এখনও ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সস্পর্ককে স্বাভাবিক রাখতে পারলে, এখনও মীমাংসা হওয়ার মতো একটি বিষয় রয়েই গেছে।

 

কাশ্মীরের প্রতি ভারতের দৃষ্টিভঙ্গি ভারী হয়ে উঠেছে কারণ এটি ফ্যাসিবাদী শাসক ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) দ্বারা অনুমানিত রাজ্য পরিচালনা করে নতুন ধারণা গুলির পরীক্ষার ক্ষেত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অনন্য প্রতিসাম্যটি তাদের ‘হিন্দুত্ববাদ’ বা ‘হিন্দুননেস’ দর্শনের উপর ভিত্তি করে -এই অঞ্চলে হিন্দুদের আধিপত্য এবং হিন্দুদের জীবনযাত্রা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করে এমন এক দুর্বৃত্ত,চরমপন্থী ধারণা। কাশ্মীরের সহিংসতার এক অনন্য ধারার ইসলামিক বিশ্বাসকে কেন্দ্র করে এর নীতিবোধ তৈরি করা হয়েছে।

এই অনন্য উত্তরাধিকার যদি ভারতের তার সহিংস দৃষ্টিভঙ্গি চাপিয়ে দেওয়ার বিজেপির সিদ্ধান্তে নিমজ্জিত হয় তবে এটি একটি বিরাট ট্রাজেডি হবে। ভারত-শাসিত কাশ্মীরে চলমান আন্দোলন মূলত স্ব-সংকল্পের অধিকার প্রয়োগের জন্য জনগণের সংগ্রামের মূল। স্বাধীনতার দাবিতে স্লোগান দেওয়া মিছিলকে ভারতীয় সেনা ও পুলিশ গুলি চালিয়েছিল। হাজারো নারী-পুরুষ এবং শিশু সেদিন হতাহত হয়েছে।

পাকিস্তানের পক্ষ থেকে কাশ্মীরি জনগণের সহায়তার অভিযোগ ভিত্তিহীন। বিদেশী গণমাধ্যমে উদ্দেশ্যমূলক প্রতিবেদন গুলি সাক্ষ্য দেয় যে কাশ্মীরি আন্দোলন আদিবাসী। জাতিসংঘ সুরক্ষা কাউন্সিলের রেজুলেশন অনুসারে পাকিস্তান জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের স্ব-সংকল্পের অধিকারকে সমর্থন করে। উনিশশত চল্লিশ আট এবং উনিশশত উনিশটি এই প্রস্তাবগুলি জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের দ্বারা রাষ্ট্রের ভবিষ্যতের সংকল্পের জন্য একটি নিরপেক্ষ ও নিরপেক্ষ মতামতকে ধারণ করার বিধান করে।

জাতিসংঘের রেজুলেশনের মূল বিষয় গুলি হল কাশ্মীর সস্পর্কিত অভিযোগ ভারত কর্তৃক সুরক্ষা কাউন্সিলে শুরু হয়েছিল। কাউন্সিল সুস্পষ্টভাবে ভারতের এই দাবিকে প্রত্যাখ্যান করেছিল। কাশ্মীর আইনগত ভাবে ভারতের ভূখণ্ড, এবং প্রস্তাব গুলি নিস্পত্তির প্রশাসনিক নীতি হিসাবে অনিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছিল কাশ্মীর বিরোধের প্রস্তাব গুলি ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে একটি বাধ্যতামূলক চুক্তির অনুমোদন দেয়, যে জাতিসংঘের ভারত ও পাকিস্তান কমিশনের (ইউএনসিআইপি) মধ্যস্থতার মধ্য দিয়ে পৌঁছেছিল।যে সম্মতিযুক্ত ও সুনির্দিষ্ট শর্তে একটি রাষ্ট্রপক্ষকে রায় দেওয়া হবে। সুরক্ষা কাউন্সিল ভারতীয় প্রশাসনের বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করেছে। কাশ্মীরের জনগণ যেহেতু সময়ে সময় নয়াদিল্লি কর্তৃক ভারতীয় প্রশাসনিক কাশ্মীরে সংগঠিত হয় “নির্বাচনী নির্বাচনে” অংশ নিয়ে। আরেকটি উদ্বেগের বিষয় ভারত কাশ্মীরে ফিলিস্তিনী ফর্মূলা ব্যবহার করতে ইসরাইলের সহায়তা নিচ্ছে।

তাদের স্ব-সিদ্ধান্তের অধিকার প্রয়োগ করেছে। ১৯৮৯ সালের নির্বাচনের সময়ে পয়েন্ট দুই শতাংশ ভোট গ্রহণ ছিল ভারতের দাবির সর্বাধিক সাম্প্রতিক ও স্পষ্ট প্রত্যাখ্যান। পাকিস্তান ইউএনসিআইপি কর্তৃক এই মতামতকে ধরে রাখার সূত্র অনুসরণ করে চলেছে। জনগণের জনপ্রিয়তা বজায় রাখতে বা সম্ভবত এর বিশাল সামরিক বাজেটকে ন্যায় সঙ্গত করার জন্য। ভারত সরকার সম্প্রতি পাকিস্তানের প্রতি ভুল পথে চালনার পথ দেখিয়েছে। তবে সমস্ত দুর্বল এবং অভিনব কৌশল গুলি যথাযথ ভাবে এবং কঠোরভাবে প্রতিদান দেওয়া হয়েছে, যার ফলে দেশী ও আন্তর্জাতিক ভাবে ভারত সরকার ব্যাপক বিব্রতবোধ এর মাঝে পড়ে।

অভিনন্দন পর্বটি সর্বশেষতম লাইনে ছিল। আগস্ট দু’হাজার ও উনিশ মাসে ভারত তার সংবিধান ৩৭০ এবং ৩৫ এ অনুচ্ছেদ বাতিল করে দেয় – যা জম্মু ও কাশ্মীরকে কাশ্মীরে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভাবে সামরিক উপস্থিতি বর্ধনের পাশাপাশি দেশের অন্যান্য অংশ থেকে উল্লেখ যোগ্য স্বায়ত্তশাসন প্রদান করেছিল। সানির মন থেকে একটি সহজ প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করবে: ভারত কী অর্জন করার চেষ্টা করছে? পাকিস্তানের সাথে যুদ্ধে জড়াতে? কাশ্মীরি মুসলমানদের প্রতি আরও নিষ্ঠুর হতে? এটি বহু বছরের দীর্ঘ অনুশীলনের পরে ইতিমধ্যে এখন একটি আদর্শ। অতএব চূড়ান্ত বিশ্লেষণে, ভারতের দুর্বল, পেশীবহুল পদক্ষেপ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিজেকে পুনঃস্থাপনের জন্য ডাইভার্সন কৌশল হিসাবে পরিকল্পিত পাওয়ার শো ছাড়া আর কিছুই নয়।

জীবন আহমেদ সরকার,বিশিস্ট কলামিস্ট ও সাংবাদিক, আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক

LEAVE A REPLY