মনপুরায় আম্পানের ক্ষতিগ্রস্থ্য বাঁধ সেচ্ছায় নির্মান করছে স্থানীয়রা

0
62

মিজানুর রহমান জুয়েল,মনপুরা প্রতিনিধি ।। ভোলার বিছিন্ন উপজেলা মনপুরা। ঘুর্ড়িঝড় আম্পানের প্রভাবে ৮কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে গেলেও বাঁধ নির্মাণ না হওয়ায় আতংকে ও দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে হাজার হাজার মানুষের ।

মনপুরা উপজেলার ২নং হাজিরহাট ইউনিয়ন চরযতিন ও সোনার চর এলাকায় বেড়িবাঁধ মেরামত ও জিও ব্যাগ দিয়ে স্থানীয় জনগণ ও এলাকার যুব সমাজের নিজস্ব অর্থায়নে ঘুর্নিঝর আম্পানের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ মেরামত শুরু করেছে।

ঘুর্নিঝড় আম্পানের প্রভাবে মনপুরা উপজেলার প্রায় ৮কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যায়। প্রায় ১০দিন পার হয়ে গেলেও এখনো ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ গুলো মেরামত হয়নি। এই নিয়ে স্থানীয় জনসাধারণের মাঝে অসন্তোষ প্রকাশ করছে। সামনে কিছু দিন পরে আমবশ্যায়, আমবশ্যায় নদীর পানি অনেক বাড়তে পারে। তখনই প্লাবিত হতে পারে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা গুলো। তাই স্থানীয় লোকজন রয়েছেন আতংকে।

ঘুর্নিঝড় আম্পানের সময় স্থানীয় জনসাধারণ ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে ভাঙ্গা বেড়িবাঁধ গুলো কিছুটা মেরামত করা হলেও যেসমস্ত বেড়িবাঁধ গুলো আম্পানের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তা এখনো মেরামত করা হয় নাই।

২নং হাজির হাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহরিয়ার চৌধুরী দ্বীপক  বলেন, ঘূর্ণিঝড় আম্পানে প্রভাবে ২নং হাজির হাট ইউনিয়নে ৩টি পয়েন্টে বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অচিরেই মেরামত না করা হলে হাজার হাজার মানুষ পানি বন্দী হয়ে থাকতে হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারী প্রকৌশলী আঃ রহমান জানান ,ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়ি বাঁধ গুলো দ্রুত মেরামত করা হবে এবং বিকল্প বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে।

এই ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস জানান, আমরা পানি উন্নয়ন বোর্ডকে বলেছি ক্ষতিগ্রস্ত বেড়ি বাঁধ গুলোকে দ্রুত মেরামত করা জন্য।

LEAVE A REPLY